default-image

এই আয়োজনে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কথা সাহিত্যিক স্বকৃত নোমান, গল্পকার মোজাফফর আহমেদ, কবি নাহিদুল ইসলাম, সাহিত্যিক ও প্রকাশক নিশাত জাহান রানা।

দীপেন ভট্টাচার্যকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন জলধির স্বত্বাধিকারি নাহিদা আশরাফী।

এই আয়োজনের প্রথম পর্বের সঞ্চালনায় ছিলেন সাহিত্যিক ও গবেষক সেলিম মোস্তফা। এ পর্বে নিজের সাহিত্যচর্চা ও জ্যোতিপদার্থবিজ্ঞানরচর্চার অজানা গল্প শোনান দীপেন ভট্টাচার্য। সাহিত্য, বিজ্ঞান, দেশপ্রেম নিয়ে নিজের উপলব্ধির কথাও তুলে ধরেন তিনি।


অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব সঞ্চালনা করেন সাহিত্যিক রুমা মোদক ও বিজ্ঞানবিষয়ক লেখক জয়দীপ দে। এ পর্ব অনুষ্ঠিত হয় অনেকটা বৈঠকি ঢঙে। সঞ্চালকদ্বয় শৈশব-কৈশোর ও বাংলাদেশের সমকালীন রাজনীতি ও বিজ্ঞানের প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে তাঁকে বিভিন্ন বিষয়ে অতিথিকে প্রশ্ন ছুড়ে দেন। দীপেন ভট্টাচার্য দর্শন, বিজ্ঞান ও ইতিহাসের আলোকে দেন সেসব প্রশ্নের যৌক্তিক ব্যাখ্যা। বিজ্ঞানের ভবিষ্যৎ, নিজের লেখা প্রবন্ধ ও গল্পের বিজ্ঞান ও দর্শনের প্রভাব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন তিনি। এ সময় নিজের লেখা বিভিন্ন উপন্যাস ও গল্পের প্রেক্ষাপট ও সারবত্তা নিয়েও বিস্তারিত আলোচনা করেন।

অনুষ্ঠানের তৃতীয় ও শেষ পর্বে উপস্থিত দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন দীপেন ভট্টাচার্য। এ পর্বে দর্শকদের অনুরোধে নিজের একটি গল্প ও দুটি কবি আবৃত্তি করে শোনান তিনি।

রাত সাড়ে নটায় উপস্থিত দর্শকদের ধন্যবাদ দিয়ে জলধি-সন্ধ্যার ইতি টানেন আয়োজক নাহিদা আশরাফী।

ইভেন্ট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন