বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এলএইচসির সাফল্যের পর এবার বিজ্ঞানীদের দৃষ্টি আরও ভালো কিছুর দিকে। এলএইচসির চেয়েও আরও বড় এবং আরও উন্নত একটি কলাইডার তাঁরা তৈরি করবেন। এর নাম ফিউচার সার্ক্যুলার কলাইডার বা FCC। এলএইচসিকে যদি সাধারণ পেরেক মারার হাতুড়ির সঙ্গে তুলনা করা হয়, তাহলে এফসিসিকে বলতে হবে পাথর ভাঙার বড় হ্যামার। এলএইচসির চেয়ে এর আকৃতি বড় হওয়ায় এবং এর শক্তি বেশি হওয়ায় এর ভেতরে পরমাণুকে আরও বেশি বেগে সংঘর্ষ ঘটানো যাবে। সংঘর্ষ যত জোরে হবে, এর নাড়িনক্ষত্র তত বেশি বের হবে।

এখন পর্যন্ত এলএইচসিই পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ও সবচেয়ে শক্তিশালী কলাইডার। এতে যে চক্রাকার রিংয়ের ভেতরে পরমাণুর সংঘর্ষ ঘটানো হয়, তার পরিধি ২৭ কিলোমিটার। উৎপন্ন করতে পারে প্রায় ১৪ টেরা-ইলেকট্রনভোল্ট। বিজ্ঞানীদের পরিকল্পিত এফএফসি যখন নির্মিত হবে, তখন এর চক্রাকার রিংয়ের পরিধি হবে ১০০ কিলোমিটার এবং উৎপন্ন করাতে পারবে ১০০ টেরা-ইলেকট্রনভোল্ট। এতে জড়িত প্রকৌশলীরা বলছেন, এতে থাকবে প্রযুক্তির আধুনিকতম ভ্যাক্যুয়াম সিস্টেম (সম্পূর্ণ চক্রাকার রিং বায়ুশূন্য থাকতে হয়), ১৬ টেসলা হাই-ফিল্ড একসিলারেটর চুম্বক, অতি-পরিবাহী পদার্থ, উন্নত রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি সিস্টেম, ক্রায়োজেনিক শীতলীকরণ ব্যবস্থাসহ আরও আধুনিক সুবিধা।

যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে, তাহলে বিজ্ঞানীদের প্রস্তাবিত এই মেগা প্রজেক্টের নির্মাণ সম্পন্ন হবে ২০৩৫ সালে এবং এটি নির্মাণ করতে খরচ হবে প্রায় ২৪ বিলিয়ন ইউরো। বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকা। উন্নত এই প্রজেক্ট নির্মাণ শেষ হলে উত্তর মিলতে পারে পদার্থবিজ্ঞানের অনেক অজানা রহস্যের, যে রহস্য দীর্ঘদিন ধরে ধাঁধায় ফেলে রেখেছে বিজ্ঞানীদের। কয়েক প্রজন্ম ধরে বিজ্ঞানীরা এর উত্তর খুঁজছেন কিন্তু পাচ্ছেন না। এর মধ্যে আছে ডার্ক ম্যাটার সমস্যা ও প্রতিপদার্থ সমস্যা। নজিরবিহীন শক্তিতে পরমাণুকে চূর্ণ করা গেলে দেখা মিলতে পারে এমন সব মৌলিক কণার, যেগুলো সম্পর্কে এখন পর্যন্ত শুধু অনুমানই করা হয়েছে কিন্তু পাওয়া যায়নি কোনো পর্যবেক্ষণমূলক প্রমাণ। এসব অনুমান করা মৌলিক কণার দেখা পাওয়া গেলে মিলতে পারে অনেক সমস্যার সমাধান। এই মহাবিশ্বের প্রায় চার ভাগের এক ভাগ কেন ডার্ক ম্যাটারের দখলে, পুরো মহাবিশ্বে প্রতিপদার্থের চেয়ে সাধারণ পদার্থের পরিমাণ কেন বেশি, প্রতিপদার্থের ছোঁয়ায় পুরো মহাবিশ্ব উবে না গিয়ে কেন বহাল তবিয়তে বর্তমান আছে, সেসব মিলিয়ন ডলার প্রশ্নের উত্তর মিলতে পারে ফিউচার সার্ক্যুলার কলাইডার থেকে। হয়তো জানা যাবে স্বয়ং হিগস–বোসন গঠিত কী দিয়ে, তা–ও।

বিশ্বব্যাপী ৭০টির বেশি প্রতিষ্ঠান এবং কয়েক হাজারের বেশি বিজ্ঞানী এতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কাজ করবেন। সবাই মিলে খুঁজবেন মহাবিশ্বের অতি-ক্ষুদ্র জগৎ থেকে অতি-বৃহৎ জগতের নানা রহস্যের সমাধান।

লেখক: শিক্ষার্থী,

সূত্র: হাউ ইট ওয়ার্কস ও সার্ন

পদার্থবিজ্ঞান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন