বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মূলত হালে প্রচলিত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় চালিত রিস্ক অ্যাসেসমেন্ট মেশিনগুলোতে বিপুল পরিমাণ ডেটা ইনপুট হিসেবে ব্যবহার করা হয়। মো. আবদুল মালেক তাঁর গবেষণায় উল্লেখ করেন, এ ধরনের স্বয়ংক্রিয় সিস্টেমে অভিযুক্ত ব্যক্তির অপরাধমূলক ইতিহাস, বয়স, লিঙ্গ, বৈবাহিক ও পারিবারিক সম্পর্ক, জীবনযাত্রার মান ও শিক্ষা ইত্যাদি সম্পর্ক অসংখ্য ডেটা সংগ্রহ, ব্যবহার ও বিশ্লেষণ করা হয়। এ ধরনের ডেটা আমাদের অতীত সমাজের পক্ষপাত ও বৈষম্যমূলক ডেটা। উপযুক্ত গবেষণা এই কারণে বলছে যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় পরিচালিত যন্ত্রে পক্ষপাতদুষ্ট ডেটা ব্যবহারের কারণে প্রযুক্তিগতভাবেই নানা ধরনের লুকানো বৈষম্য ও পক্ষপাত বিদ্যমান থাকার মারাত্মক ঝুঁকি রয়েছে। তাই অবাঞ্ছিত ফলাফল হিসেবে নানা ধরনের মেশিন বা যান্ত্রিক বৈষম্য নতুন রূপে সমাজে আবির্ভাব হতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ আবদুল মালেক আরও দাবি করেন যে বর্তমানে ফৌজদারি আদালতে ব্যবহৃত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সংস্করণটি প্রকৃতিগতভাবেই পক্ষপাতমূলক ডেটা দিয়ে তৈরি এবং প্রশিক্ষিত। তাই অভিনব পক্ষপাত, যেমন প্রযুক্তিগত পক্ষপাত, ডেটাসেট পক্ষপাত, নমুনা পক্ষপাত, অটোমেশন পক্ষপাত, নিশ্চিতকরণ পক্ষপাত, প্রতিনিধিত্ব পক্ষপাত এবং মিথস্ক্রিয়া পক্ষপাতের মতো নেতিবাচক প্রভাব ফৌজদারি বিচারব্যবস্থাকে আরও বৈষম্যমূলক ও পক্ষপাতদুষ্ট করে তুলবে। ফলে এ ধরনের প্রযুক্তি নিয়ে আইনি ও নৈতিকতার প্রশ্নে গভীর উদ্বেগ রয়েছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, এরূপ অনাকাঙ্ক্ষিত পক্ষপাতসমূহ ফৌজদারি বিচারব্যবস্থার প্রাসঙ্গিকতায় বিশেষভাবে অন্বেষণ এবং পরীক্ষা করেছেন এই বিচারক গবেষক। পাশাপাশি বিষয়বস্তু আলোচনায়, আমেরিকার বিখ্যাত লুমিস কেস (২০১৬) ও বিচারকদের করণীয় সম্পর্কে আদালতের পর্যবেক্ষণগুলো বিশেষভাবে আলোচনা করা হয়েছে এই গবেষণা প্রবন্ধে।

ব্যক্তির অধিকার, বিচারিক মূল্যবোধ ও ন্যায্যতার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে বিধায় ফৌজদারি আদালতে এআই প্রযুক্তি অন্ধভাবে ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছেন রাজশাহীর এই বিচারক। এ ছাড়া তিনি আশঙ্কা করেছেন যে ফৌজদারি আদালতে এআই মেশিনকে অন্ধভাবে ব্যবহার করা হলে আদালতে অমানবীয় ‘মেশিন কর্তৃত্ব’ স্থাপিত হতে পারে। কেননা, সারা বিশ্বে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সামরিক ও সামাজিক কল্যাণের মতো সরকারি খাতগুলোতে ব্যবহৃত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বর্তমান সংস্করণ এখনো মানুষের ভুলভ্রান্তি, বৈষম্য এবং পক্ষপাতদুষ্ট আচরণ সংশোধন করতে সক্ষম নয় মর্মে এই গবেষক মনে করেন।

এ ছাড়া আদালতের মতো সংবেদনশীল প্রতিষ্ঠানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মতো উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের দরুন তৈরি হওয়া সমস্যা সমাধানের সম্ভাব্য উপায় যুক্তিসহ উপস্থাপন করা হয়েছে এ গবেষণাপত্রে। বলার অপেক্ষা রাখে না, বিচারাঙ্গনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার ও তার প্রভাববিষয়ক এই গবেষণা শুধু বাংলাদেশ নয়, হাল বিশ্বে চলমান এআই প্রযুক্তি নিয়ে নানামুখী বিতর্কের এক অনবদ্য অংশ। বাংলাদেশি কোনো অধস্তন আদালতের বিচারক হিসেবে এমন জটিল ও আন্তবিষয়ক গবেষণা সম্পন্ন করা এবং তা আবার বিশ্বমানের একটি জার্নালে প্রকাশ করা সত্যিই যেমন অনেক চ্যালেঞ্জিং, তেমনি অনেক আনন্দেরও বটে। প্রকৃতপক্ষে এ ধরনের সময়োপযোগী ও ভিন্নধর্মী গবেষণালব্ধ জ্ঞান বাংলাদেশের বিচারব্যবস্থায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ও ফলপ্রসূ প্রভাব ফেলবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তা ছাড়া এ ধরনের প্রযুক্তির উন্নয়ন, ব্যবহার, গবেষণাসহ বিচার প্রশাসনের নীতিনির্ধারণে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি।

লেখক: এলএলএম (আইটি ল অ্যান্ড পলিসি) ও লিগ্যালটেক গবেষক, ইউকে

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন