বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কীভাবেই-বা সে কাজ করে? বেশ ঝুঁকি নিয়েই জুলিয়াস তাঁর প্রজেক্ট শুরু করলেন! তিনি স্নায়ু কোষ থেকে জিন সংগ্রহ করে সেটাকে টুকরো টুকরো করে ছোট ছোট জিন পুল বা জিনের আধার বানালেন। প্রায় ১৬ হাজার জিন পুল তৈরি করলেন! প্রতিটি জিন পুলকে আলাদা আলাদাভাবে তিনি প্রয়োগ করলেন কিডনি কোষে। কিডনি কোষ সেই জিনগুলোকে প্রোটিন আকারে প্রকাশ করতে লাগল। এরপর কিডনি কোষে তিনি ক্যাপসাইসিন প্রয়োগ করলেন। যদি ক্যাপসাইসিন কিডনি কোষকে উত্তেজিত বা সক্রিয় করতে পারে, তাহলে কোষের বাইরে থেকে ক্যালসিয়াম আয়ন কোষের ভেতরে প্রবেশ করবে, আর বিশেষ রঙের সাহায্যে সেই ক্যালসিয়ামের উপস্থিতি বোঝা যাবে। জুলিয়াস ভাগ্যবানই বটে! ১৬ হাজার জিন পুল থেকে একটি জিন পুল কাজ করল। ১১ নম্বর পুলটি যে কোষে প্রকাশ পেয়েছিল, সেটি কোষের ভেতর ক্যালসিয়ামের উপস্থিতি অনেক বাড়িয়ে দিল। তার মানে এই জিনটি থাকার কারণে ক্যাপসাইসিন কিডনি কোষকে উত্তেজিত করতে পেরেছে। এই জিনটি আসলে একটি রিসেপ্টর প্রোটিনের প্রকাশ ঘটায়, তার নাম জুলিয়াস দিলেন VR1(V আদ্যক্ষরটি এসেছে ভ্যালিনাইল থেকে, ক্যাপসাইসিনে এই রাসায়নিক গ্রুপটি আছে, তাই ক্যাপসাইসিনকে ভ্যালিনয়েড পদার্থও বলা হয়)। পরবর্তীতে এই রিসেপ্টরের নাম বদলে দেওয়া হলো TRPV1। নামটি কি চেনা চেনা লাগছে? জি, ঠিকই ধরেছেন, এটি সেই রিসেপ্টর, যা আবিষ্কার করে জুলিয়াস ঘরে তুলেছেন নোবেল পুরস্কার! জুলিয়াসের কাজ অবশ্য ক্যাপসাইসিনের এই রিসেপ্টর আবিষ্কারের মধ্যেই থেমে ছিল না। তিনি আরো প্রমাণ করেন, ক্যাপসাইসিনের এই রিসেপ্টরই তাপে পুড়ে যাওয়ার অনুভূতির জন্য দায়ী! পরবর্তীতে জুলিয়াস আগ্রহী হন শরীরের তাপ বোঝার এ ক্ষমতা নিয়ে। তিনি ভাবলেন, যদি তাপের জন্য রিসেপ্টর থাকতে পারে, তাহলে ঠাণ্ডা অনুভূতির জন্য অবশ্যই আলাদা রিসেপ্টর থাকার কথা। তিনি আবার শুরু করলেন সেই প্রথম থেকে, ঠিক যেমন মরিচ দিয়ে শুরু করছিলেন তাপের বেলায়। তিনি এবার সাহায্য নিলেন মিন্ট বা মেনথলের। এটা আমাদের ঠাণ্ডা অনুভূতি জাগায়। ভাগ্য এবারো নিরাশ করল না জুলিয়াসকে। মরিচের মতো একই ধরনের পরীক্ষার সাহায্যে তিনি আবিষ্কার করলেন, ঠাণ্ডার অনুভূতি গ্রহণের জন্য আমাদের আছে আলাদা রিসেপ্টর, এর নাম TRPM8। জুলিয়াস আরও বেশ কিছু রিসেপ্টর নিয়ে কাজ করেছেন, যেমন জাপানী রান্নায় ঝাল স্বাদের জন্য ব্যবহৃত ওয়াসাবি TRPA1 নামের ভিন্ন রিসেপ্টরের সঙ্গে যুক্ত হয়। তাই মরিচের ঝাল স্বাদের সঙ্গে ওয়াসাবির ঝাল স্বাদের পার্থক্য ধরা যায়।

default-image

প্রশ্ন হলো, এসব রিসেপ্টর সম্পর্কে গবেষণা আমাদের কি কাজে আসবে? এই যে প্রচণ্ড তাপ বা ঠান্ডার অনুভূতি, এগুলো মূলত ব্যথা বা পেইন। তাই ভবিষ্যতে পেইনকিলার বা ব্যথানাশক ওষুধ বানানোর সময় এ রিসেপ্টরকে টার্গেট করা যাবে সহজেই। জুলিয়াস মরিচ থেকে যে গবেষণা শুরু করেছিলেন, তা এখন অবদান রাখছে চিকিৎসাবিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে।

লেখক: পিএইচডি শিক্ষার্থী, দ্য গ্রাজুয়েট ইউনিভার্সিটি ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজ, জাপান

সূত্র: নোবেল প্রাইজ ডট অর্গ, উইকিপিডিয়া

জীববিজ্ঞান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন