এ নিয়েই গবেষণা করেছেন ১৫ সেপ্টেম্বর সায়েন্স জার্নালে প্রকাশিত 'বেঙ্গল ওয়াটার মেশিন: কোয়ান্টিফায়েড ফ্রেশওয়াটার ক্যাপচার ইন বাংলাদেশ' গবেষণাপত্রের গবেষকরা। ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের (ইউসিএল) ইন্সটিটিউট ফর রিস্ক এন্ড ডিজ্যাস্টার রিডাকশন-এর ভূতত্ত্ববিদ মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা, ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের ভূগোলবিদ ও গবেষক রিচার্ড জি টেইলর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মো. ইজাজুল হক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক সারা নওরিন, বাংলাদেশ ওয়াটার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের গবেষক আনওয়ার জাহিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক কাজী মতিন উদ্দিন আহমেদ-এই ছয় গবেষক সারা বাংলাদেশে সেচ ব্যবস্থা মনিটরিংয়ের কাজে নিয়োজিত ৪৬৫টি সরকারি স্টেশন থেকে তথ্য সংগ্রহ করে বোঝার চেষ্টা করেছেন, সেচ পাম্প দিয়ে পানি ওঠানোর ফলে পানির স্তর আসলেই নিচে নেমে যাচ্ছে কি না। গেলে, কী হারে নেমে যাচ্ছে।

এ গবেষণার ফলাফল রাতারাতি চমকে দেওয়ার মতো। তাঁরা দেখেছেন, ১৯৮৮ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত গত ৩০ বছরে প্রায় ১৬ মিলিয়ন বা ১ কোটি ৬০ লাখ কৃষক ছোট পরিসরে সেচ পাম্প ব্যবহার করে ভূগর্ভস্থ পানি তুলে কৃষিকাজে ব্যবহার করেছেন। তাঁদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফলে ভূগর্ভে ছোট ছোট গর্ত বা জলাধার তৈরি হয়েছে। এসব জলাধার ৭৫-৯০ ঘন কিলোমিটার আয়তনের পানি জমিয়ে রাখতে পারছে, যা তিনটি জর্জ বা হুভার বাঁধের সমতুল্য। এসব সেচ পাম্পের নাম তাঁরা দিয়েছেন 'বেঙ্গল ওয়াটার মেশিন' বা 'বঙ্গীয় জলযন্ত্র'।

পুরো পদ্ধতিটা একটা চমৎকার ও টেকসই পানিচক্রের কাজ করে। এর পেছনে বড় ভূমিকা রয়েছে বাংলাদেশের নদীগুলোর। গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র হিমালয় থেকে পলিমাটি বয়ে আনে। এই পলিমাটি জমা হয় নদীর তলদেশে। এভাবেই মূলত গড়ে উঠেছে বঙ্গীয় বদ্বীপ বা বেঙ্গল ডেল্টা, আর এসব পলিমাটিই বাংলাদেশের জমিগুলোকে উর্বর করে তুলেছে। এভাবে জমা হওয়া পলিমাটিতে অগণিত ছোট ছোট গর্ত তৈরি হতে পারে। ভারী বৃষ্টি হলে মাটি সেই পানি শুষে নেয়। বাংলাদেশের পলিমাটিতে তৈরি হওয়া গর্তগুলো তখন জলাধারের কাজ করে। ফলে বন্যার ভাসিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা কমে যায়, আবার অনেকটা পানি জমা হওয়ার ফলে শুষ্ক মৌসুমে কৃষকরা সেই পানি ব্যবহার করতে পারেন। শুষ্ক মৌসুমে সেচ কাজে পানি ব্যবহার করলে ভূগর্ভে আরও জায়গা তৈরি হয়। ফলে বর্ষায় আরও বেশি পানি শুষে নেওয়ার ক্ষমতা অর্জন করে মাটি। এভাবেই চক্রাকারে কাজ করে বেঙ্গল ওয়াটার মেশিন বা বঙ্গীয় জলযন্ত্র।

গবেষণা দলের সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কাজী মতিন আহমেদ বলেন, 'এ ধরনের কাজের জন্য স্থান নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যেন মাটির স্তর বা মাটির নিচের পানির স্তর নিচে নেমে না যায় ও ব্যবস্থাটি কৃষকদের সর্বোচ্চ সহায়তা করে কৃষিকাজে।' তাঁর এ বক্তব্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, ঢাকার মতো যেসব অঞ্চলে মাটির ওপরাংশের বেশিরভাগটা জুড়ে রয়েছে কংক্রিটের আবরণ, সেসব জায়গা বেঙ্গল ওয়াটার মেশিন হিসেবে কাজ করবে না ঠিকভাবে। কারণ, কংক্রিটের আবরণের বাধার ফলে মাটি বৃষ্টি বা বন্যার পানি যথেষ্ট পরিমাণে শুষে নিতে পারে না। তবে যথার্থভাবে স্থান নির্বাচন করে এ ধরনের সেচ প্রকল্প করা হলে তা একদিকে যেমন ভবিষ্যতে খাদ্য যোগানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, তেমনি কার্যকর ভূমিকা রাখবে বন্যা নিয়ন্ত্রণে।