default-image

স্বাগত বক্তব্যে বিজ্ঞানচিন্তার সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম বলেন, কুসংস্কার দূর করে তরুণ প্রজন্মকে বিজ্ঞান সচেতন করার লক্ষ্য নিয়েই বিজ্ঞানচিন্তা কাজ করে যাচ্ছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির জ্ঞান তরুণ সমাজে ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে বিজ্ঞানিচন্তার এ আয়োজনে সঙ্গী হওয়ার জন্য মেটালকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

default-image

মেটালের গ্রুপ প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ এম এম ফরহাদ হোসেন বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্যাণ শতভাগ কাজে লাগিয়ে কৃষি উৎপাদনের হার বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছি আমরা। বিজ্ঞানচিন্তার এই মহতী উদ্যোগে আমরা সঙ্গী হতে পেরে আমরা গর্বিত। ভবিষ্যতেও আমাদের এই যৌথ পথচলা অব্যাহত থাকবে।

default-image

প্রধান বক্তা জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানী দীপেন ভট্টাচার্য জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের পেছনের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ধারণা দেন। পরে এ টেলিস্কোপে সম্প্রতি তোলা ছবিগুলোর ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণ করেন। তিনি বলেন, জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ মহাবিশ্বের আরও স্পষ্ট ছবি দেখাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এই টেলিস্কোপের সাহায্য ১৩০০ কোটি বছর আগের অতীত দেখতে পাচ্ছি সত্যি, কিন্তু নিজেদের অতীত কখনই দেখতে পাবো না। তবে মহাবিশ্ব সৃষ্টির মুহূর্তের খুব কাছে পৌঁছানো সম্ভব হবে।

default-image

বিশেষ অতিথি অধ্যাপক আরশাদ মোমেন বলেন, জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের ছবিগুলো বিশ্বব্যাপী আলোড়ন তুলেছে। সেই উন্মাদনায় শামিল হয়েছে এদেশের তরুণরাও—এটা খুব ভালো খবর আমার জন্য।

default-image

বক্তৃতা শেষে উপস্থিত দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন দুই অতিথি। এরপর দর্শকদের জন্য ছিল বিশেষ কুইজ প্রতিযোগিতা। কুইজ বিজয়ীদের হাতে বিজ্ঞানচিন্তা, মেটাল ও অন্যরকম বিজ্ঞান বাক্সের সৌজন্যে বিশেষ পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন তাসফিয়া কাদের।

default-image

এর আগে, গত ১২ জুলাই জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের তোলা প্রথম ছবি প্রকাশ করেছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ছবিটি ১৩০০ কোটি বছর আগের মহাবিশ্বের। বিশ্বব্যাপী সাড়া ফেলেছে ছবিটি। ছবিতে লুকিয়ে আছে মহাবিশ্বের জন্ম ও বেড়ে ওঠার ইতিহাস। ঠিক কীভাবে জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের হাত ধরে বদলে যাবে বিজ্ঞানচর্চার প্রচলিত ধারা, তা নিয়ে সর্বসাধারণের কৌতূহল মেটাতে বিজ্ঞান বক্তৃতার আয়োজন করে বিজ্ঞানচিন্তা ও মেটাল।

ইভেন্ট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন