default-image

কয়লার সবচেয়ে পরিষ্কার রূপ হিসাবে বিবেচনা করা হয় অ্যানথ্রোসাইট কয়লাকে। এতে উদ্বায়ী হাইড্রোকার্বনের পরিমাণ কম। ক্রমাগত তাপ ও চাপের বৃদ্ধির ফলে বিটুমিনাস থেকে অ্যানথোসাইট তৈরি হয়। তবে, অ্যানথ্রোসাইট রূপান্তরের শেষধাপ নয়। তাপ এবং চাপ আরও বাড়তে থাকলে অ্যানথ্রোসাইট পরিণত হয় গ্রাফাইটে। সবশেষ পর্যায়ে গ্রাফাইট থেকে তৈরি হয় হীরা।

৩৪৯০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে চীনের শানসি প্রদেশে কয়লা ব্যবহারের নিদর্শন খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। বিশ্বজুড়ে কয়লার ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয় ১৮ শতকে শুরু হওয়া শিল্প বিপ্লবের সময়। বাষ্প ইঞ্জিন চালানোর জন্য তখন একমাত্র জ্বালানী ছিল কয়লা।

প্রকৃতি ও পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর এই জ্বালানী। স্ট্যাটিস্টায় প্রকাশিত এক রিপোর্ট অনুযায়ী, কয়লার কারণে শুধু ২০২০ সালেই প্রায় ১ কোটি ৩৯ লাখ মেট্রিক টন কার্বন ডাই-অক্সাইড যুক্ত হয়েছে বায়ুমণ্ডলে।

আশার কথা, কয়লার ব্যবহার কমছে ধীরে ধীরে। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা করতে প্রায় সব দেশই কয়লার ব্যবহার বন্ধে কাজ করে যাচ্ছে। এগোচ্ছে, সৌর বিদ্যুৎ বা নিউক্লিয়ার ফিউশনের মতো গ্রিন এনার্জির দিকে।

লেখক: শিক্ষার্থী, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, তেজগাঁও কলেজ, ঢাকা

সূত্র: সায়েন্স ফোকাস

অন্যান্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন