বিজ্ঞানীরা মনে করেন, প্রতিবছর পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে মহাকাশ থেকে আসা ধূলিকণা ও স্পেসজাংকের মোট পরিমাণ প্রায় ৪০ হাজার টন বা প্রায় ৪০×১০কেজি। পাশাপাশি প্রতিবছর পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল থেকে প্রায় ৯৫ হাজার টন হাইড্রোজেন গ্যাস হারিয়ে যাচ্ছে মহাকাশে।

এখানেই শেষ নয়। ভরের পরিবর্তনের পিছনে আরও কারণ আছে। পৃথিবীর কেন্দ্রে তেজস্ক্রিয় ক্ষয়ের কারণে প্রতিবছর প্রায় ১৬০ টন ভর শক্তিতে রূপান্তর হচ্ছে। হাইড্রোজেন ছাড়াও বায়ুমণ্ডল থেকে মহাকাশে বিলীন হয়ে যাচ্ছে প্রায় ১ হাজার ৬০০ টন হিলিয়াম। মহাকাশে পাঠানো মহাকাশযান বা অন্যান্য যন্ত্রপাতির ভর এসবের তুলনায় নগন্য বলা যায়।

সবকিছু মিলিয়ে বিজ্ঞানীদের ধারণা, পৃথিবী প্রতিবছর প্রায় ৫০ হাজার টন ভর হারাচ্ছে। শুনতে অনেক বেশি মনে হলেও, পৃথিবীর ভরের তুলনায় এটা খুবই সামান্য। পৃথিবীর ভর প্রায় ৫.৯৭ বিলিয়ন ট্রিলিয়ন টন। এই হারে ভর হারাতে থাকলে পৃথিবীর সম্পূর্ণ ভর হারিয়ে যেতে সময় লাগবে প্রায় ১ হাজার ২০০ কোটি কোটি বছর! এটা বিশাল একটা সময়। খোদ মহাবিশ্বের বয়সেরও প্রায় কয়েক লাখ গুণ। বর্তমান বয়স প্রায় ১৩৫০ কোটি বছর।

পৃথিবীর সামান্য ভর কমার পরিমাণ এতোই সামান্য যে, দৈনন্দিন জীবনে এর প্রভাব টের পাবো না আমরা। পুরোপুরি ভর হারিয়ে যাওয়ার বহু আগে পৃথিবী থেকে বিলীন হয়ে যাবে প্রাণের অস্তিত্ব। এমনটাই মনে করেন বিজ্ঞানীরা। তাই, পৃথিবীর ভর কমলেও এটা নিয়ে আসলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই।

লেখক: শিক্ষার্থী, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, তেজগাঁও কলেজ, ঢাকা

সূত্র: সায়েন্স ফোকাস

মহাকাশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন